মধ্য আফ্রিকার দক্ষিণ সুদানের এক যাযাবর রাখাল জাতির নাম “মুন্ডারি”। গরুই এদের সর্বস্ব। এই উপজাতি সমাজে গরুই হল সম্মান আর প্রভাব প্রতিপত্তির মাপকাঠি। এমনকি বিয়ের সময় উপহার হিসেবে গরুই প্রদান করতে হয়। এরা গরুর ঘাসের জন্য যাযাবরের মত বিস্তীর্ণ এলাকা চষে বেড়ায়, সেই কারণে এদের নির্দিষ্ট কোন ঠিকানা নেই। এখানে গরুর দাম ধরা হয় শিং এর লম্বা বিবেচনায়। যে গরুর শিং যত লম্বা সেই গরুকে তততাই দামি ধরা হয়ে থাকে। এরা গরুর শিঙ্গের যত্নও করে। এসব গরুগুলোও প্রচণ্ড প্রভুভক্ত। এরা সারাদিন নিজেদের মত চরে বেড়ালেও দিনের শেষে এরা নিজেদের মালিকের ডেরায় ফিরে আসে। মুন্ডারিদের জীবন এতটাই গরু নির্ভর যে শুকনো গোবরের ছাই এদের কাছে আরামদায়ক বিছানা। গরুর প্রসাব এরা নিজেদের চুল রঙিন করতে ব্যাবহার করে। এদের প্রধান খাদ্য গরুর দুধ।



সব মুন্ডারির কাছেই একটি করে আগ্নেয়আস্ত্র রয়েছে, তবে এসব অস্ত্র শুধুমাত্র গরুর স্বার্থ রক্ষার স্বার্থেই ব্যাবহার করা হয়ে থাকে। গরুর জন্য এরা জীবনও বাজি রাখতে প্রস্তুত। দক্ষিণ সুদান অর্থনৈতিক ভাবে অত্যন্ত ভঙ্গুর একটি দেশ। এখানে একটি গরুর দাম ৫০০ ডলার পর্যন্ত হয়ে থাকে, যেটা এখানে বিপুল পরিমান টাকা।

অত্যন্ত সুঠামদেহী মুন্ডারিরা অত্যন্ত আমোদপ্রিয় জাতি। মাঠে ঘাটে অত্যন্ত মানবেতর জীবন যাপন করলেও প্রায়ই এরা নিজেদের ভিতরে বিভিন্ন ধরণের খেলায় মেতে ওঠে। কুস্তি এখানে অত্যন্ত জনপ্রিয় একটি খেলা। এরা এই খেলায় এতটাই পারদর্শী যে শহরের বিভিন্ন অনুষ্ঠানে মুন্ডারি কুস্তিগীরদের ডাক পড়ে। পুরো আফ্রিকাতে এদের বীরত্বগাঁথা সমাদৃত। মানুষ ও অন্যান্য প্রানীর মধ্যে পারস্পরিক ভালোবাসা কতটা দৃঢ় হতে পারে মুন্ডারি জাতি ও তাদের গরুর প্রতি ভালোবাসা তারই একটি উৎকৃষ্ট উদাহরণ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here